প্রেমের টানে মেক্সিকান প্রেমিকা বাংলাদেশে

জামালপুর প্রতিনিধি : | প্রকাশিত: ২২ নভেম্বর ২০২১ |   

ভাষা-সংস্কৃতি, ধর্ম-বর্ণেরf ভেদাভেদ ভুলে প্রেমের টানে সুদুর মেক্সিকো থেকে বাংলাদেশে ছুটে এসেছেন প্রেমিকা। নাম তার ‘গ্লাডির্স নাইলী ট্রোরেবিয়ো মোরালিয়ার্স’ (৩২)। ২০১৯ সালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইজবুকে বাংলাদেশী ছেলে রবিউল হাসান রোমনের (২৮) সাথে তার পরিচয় হয়। পরিচয়ের সুত্র ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্কে গড়ে উঠে। এই সম্পর্কের টানে গত রোববার সকালে সে বাংলাদেশে চলে। রোমান জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের চর পোগলদিঘা গ্রামের আলহাজ নজরুল ইসলামের ছেলে।

সমাজে ভালোবাসার টানে ঘর ছাড়ার ঘটনা  অহরহ ঘটলেও। প্রেমের টানে দেশ ছাড়ার ঘটনা এ যুগে বিরল। গত রোববার (২১নভেম্বর) সকালে মেক্সিকো থেকে বাংলাদেশের শাহ-জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসেন নাইলী। পরে রোম নর  পরিবারের সদস্যদের সহায়তায় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে কোর্ট ম্যারেজ করে তাদের বিয়ে হয়।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, মেক্সিকোর এক খ্রীস্টান পরিবাবরে জন্ম হয় নাইলীর। মেক্সিকো ইউনির্ভাসিটি থেকে (সাইনোক্লোজি) বিষয়ের উপর পড়াশুনা শেষ করে বর্তমানে ফুড ব্যবসায়ী হিসেবে বিজনেস করেন। তার পিতা একজন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। ২০১৯ সালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রোমনের সাথে তার পরিচয় হয়। প্রেমের টানে সব কিছু ছেড়ে সে চলে আসেন বাংলাদেশে। পরে সে ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। ঢাকা জর্জকোর্টের মাধ্যমে তাদের ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী ১লক্ষ টাকার কাবিনের মাধ্যমে তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের কাজ শেষে পরিবারের লোকজন তাকে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসেন।

এ ব্যাপারে আলহাজ নজরুল ইসলাম বলেন, তাদের সম্পর্কের ব্যাপারে তার ছেলে তাদেরকে আগেই জানিয়ে ছিলেন। পরে তারা পরিবাবারের সকলেই মিলে বিমানবন্দরে গিয়ে নাইলীকে গ্রহণ করেছেন। পরে জর্জকোটের মাধ্যমে বিবাহ সম্পুর্ন করে ছেলে এবং ছেলের বউকে বাড়িতে নিয়ে আসেন।

এ ব্যাপারে রবিউল হাসান রোমন বলেন, আড়াই বছর ধরে তাদের মধ্যে প্রেসের সম্পর্ক গড়ে উঠেছে। সে প্রেমের টানে মেক্সিকো যাওয়া জন্য অনেক চেষ্টা করে। তবে যেতে পারেনি। অবশেষে করোনা পরিস্থিতি অনেকটা স্বাভাবিক হলে টুরিস্ট ভিসায় সে আমাকে বিয়ে করার জন্য বাংলাদেশে এসেছে।

এ নিয়ে পোগলদিঘা ইউপি চেয়ারম্যান সামস্ উদ্দিন জানান, মেক্সিকো থেকে এক তরুণী চর পোগলদিঘা গ্রামে এসেছে। তারা জর্জকোটের মাধ্যমে ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক কোর্ট-ম্যারেজ করে গ্রামের বাড়িতে ছেলের পরিবারের কাছে এসেছে।


মন্তব্য লিখুন :